Page

Follow

জীবনের উদ্ধব কি আকস্মিক রাসায়নিক দুর্ঘটনা? ||বিবর্তনবাদ || বিবর্তনবাদী সেকুলার বিজ্ঞানীদের অভিমত ||PAGE-57

  

বিবর্তনবাদী সেকুলার বিজ্ঞানীদের অভিমত 

PAGE-57
বিবর্তনবাদ || বিবর্তনবাদী সেকুলার বিজ্ঞানীদের অভিমত


জড় পদার্থ থেকে যে জীবনের উদ্ভব হয় না, এই বাস্তব সত্যগুলিই তার যথেষ্ট প্রমাণ ঃ

১. বর্তমানের অত্যন্ত উন্নত ও শক্তিশালী প্রযুক্তির গবেষণাগারেও তৈরী

করা যায়নি এক কণা জীবনের স্ফুলিঙ্গ।।


 ২. এমনকি একটি সিন্থেটিক সেলও’ তৈরী করা সম্ভব হয়নি গবেষণাগারে।


৩. জীবন কি, সেটাই জানা যায়নি আজও, নির্ধারণ করা যায়নি জীবনের

সঠিক সংজ্ঞা। 


ভবিষ্যতে করে দেখানাে হবে’–এই যুক্তিতে কোন মতবাদকে তার পূর্বেই প্রতিষ্ঠিত সত্য বলে প্রমাণ করার চেষ্টা করা অযৌক্তিক, হাস্যকর ও অবৈজ্ঞানিক। এটি এক ধরনের বৈজ্ঞানিক গোঁড়ামি, যার মধ্যে বিজ্ঞান ছাড়া আর সবকিছু আছে। নাছােড়বান্দা নাস্তিকেরা যুক্তিবাদের আড়ালে এভাবেই লুকিয়ে রাখেন তাদের জ্ঞানের দৈন্য আর যুক্তির অসারতা। অবশ্য পাশাপাশি অনেকে আছেন, যাঁরা সত্য স্বীকারে কুণ্ঠা বােধ করেন না। 


নীচে কিছু বিবর্তনবাদী বিজ্ঞানীদের সাম্প্রতিক উপলব্ধি ঃ -নােবেলজয়ী (ফিজিওলজি অ্যান্ড মেডিসিন) ওয়ের্নার আরবার (Former President of the International Council for Science) বিজ্ঞান-গ্রন্থ রচয়িতা, জীবনের উদ্ভব নিয়ে গবেষণাকারী : 


“অবশ্য আমরা যথাযথ এনজাইমগুলি দিয়ে রাসায়নিক বিক্রিয়া বাড়িয়ে দিতে পারি। কিন্তু জীবনের অভিব্যক্তি তার চেয়ে অনেক বেশি গভীর। আমি মনে করি, জীবনের রহস্য ব্যাখ্যার ক্ষেত্রে প্রথমে এইটির সমাধান করতে হবে যে কিভাবে এই সমস্ত জৈব অণুগুলি বর্তমানে • যাদেরকে আমরা জৈব জীবনের সাংগঠনিক অংশের সদৃশ বা সমতুল বলে জানি—সেগুলি কিভাবে একত্রিত হলাে যাতে একটি আদিম কোষ ক্রিয়াশীল হয়ে উঠল? এইটি আমার বােধবুদ্ধির বাইরে। সুতরাং এটি একটি কঠিন সমস্যা।” 


 “For a number of years I had concentrated on exploring molecular evolution, and I had also raised questions on the origin of life which is of wide interest. But I have given up trying to find answers to these later questions. I know how difficult it is. However, many scientists still think that the properties of matter, organic molecules, are such that life could be a probable event. I guess the question is: how probable will that be??? 


“কিছু বছর ধরে আমি আণবিক বিবর্তনের (প্রাকৃতিক ঘটনাচক্রে জৈব অণু সৃষ্টি) বিষয়টি নিয়ে গবেষণা করছিলাম এবং আমি জীবনের উদ্ভবের বিষয়েও প্রশ্ন তুলেছিলাম, যে সম্বন্ধে বিজ্ঞানী মহলে ব্যাপক আগ্রহ রয়েছে । কিন্তু আমি এই পরবর্তী প্রশ্নগুলির (জীবনের উদ্ভব) উত্তর পাবার চেষ্টা ত্যাগ করেছি। আমি জানি এটা কত কঠিন। অবশ্য অনেক বিজ্ঞানী এখনাে ভেবে থাকেন যে জড় বস্তু, জৈব অণুগুলি এমনই যে তার থেকে প্রাণের উদ্ভব হওয়া সম্ভব। আমার মনে প্রশ্ন জাগে ঃ কতখানি সম্ভব সেটি ?” 


ননাবেলজয়ী জ্যাকুইস মােনােড, যিনি একসময় বিবর্তনবাদ ও নাস্তিকতার অন্যতম গোঁড়া ছিলেন ('One of the most fanatical defenders of evolution and atheism'-Article Darwinosm Defeated): 


ডি-এন-এ কোষ-ম্যাকানিজম সম্বন্ধে ঃ

 "The code is meaningless unless translated. The modern cell's translating machinery consists of at least 50 macromolecular components, which are themselves coded in DNA : the code cannot be translated otherwise than by products of translation themselves. It is the modern expression of Omne Vivum ek Ovo. When and how did this circle become closed? It is exceedingly difficult to imagine."


“যদি ভাষান্তরিত না হয় তাহলে সংকেত লিপি অর্থহীন। আধুনিক কোষের ভাষান্তরের যন্ত্রকৌশল অন্ততঃপক্ষে ৫০টি বড় অণু নিয়ে গঠিত, যে অণুগুলির সংকেত লিপি আবার ডি.এন.এতে সংকেতবদ্ধ রয়েছে। ভাষান্তরের ফলে সৃষ্ট অণুসমূহ ছাড়া আবার সংকেত লিপির পাঠোদ্ধার সম্ভব নয় .......... .। কখন কিভাবে এই চক্রবর্তক্রিয়া সম্পূর্ণ হয়ে ক্রিয়াশীল হয়েছিল ? কল্পনা করা অত্যন্ত দুরূহ ব্যাপার।” 



নােবলজয়ী চার্লস টাউইনস্ঃ 


সরলতম জীব সৃষ্টিও অবাস্তব কল্পনা। “I would say in physics we set up certain simple situations to study. The biologists do that to some extent, too, but at least at present they can't set up a really simple organism that's living. That seems impractical”, 


“আমি বলব যে পদার্থবিদ্যায় আমরা গবেষণার জন্য সরলতম কিছু পরিস্থিতি তৈরী করি। জীবতত্ত্ববিদেরাও কিছুটা পরিমাণে সেটাই করেন, কিন্তু অন্ততঃপক্ষে আজ পর্যন্ত এমনকি তাঁরা একটি জীব-কোষও তৈরী করতে পারেননি যা জীবন্ত। জীব সৃষ্টি আমার কাছে অবাস্তব মনে হয়।” 


ডি. এন. এ স্ট্রাকচার আবিষ্কারের জন্য নােবেলজয়ী বিজ্ঞানী ফ্রান্সিস ক্রিকঃ

1. “An honest man, armed with all the knowledge available to us now, could only stake that, in some sense, the origin of life appears at the moment to be almost a miracle , 


“আমাদের কাছে এখনাে পর্যন্ত যত জ্ঞান আছে, সেই সমস্ত জ্ঞান অধিগত করেও একজন সৎ মানুষ কেবল এইটুকুই বলতে পারবেন যে এক অর্থে, জীবনের উদ্ভব এই মুহূর্তে প্রায় এক অলৌকিক ব্যাপার বলে মনে হয়।”


 2. “Every time I write a paper on the origin of life, I determine I will never write another one, because there is too much speculation running after too few facts."


“জীবনের উৎপত্তির উপরে আমি যখনই কোন পেপার লিখি, তখনই আমি সংকল্প গ্রহণ করি যে আমি আর কখনই এই বিষয়ে আরেকটি পেপার লিখতে যাব না, কেননা সামান্য সংখ্যক কিছু তথ্য নিয়ে কত বেশি কল্পনার আশ্রয় গ্রহণ করা হয়েছে।”


নোবেলজয়ী, কেম্ব্রিজ ইউনির্ভাসিটির প্রাক্তন ডাইরেকটর অব রিসার্চ, বি.ডি. জেফারসন ::-

 "The presence of an intelligence manifests itself via the presence of or the creation of states which are a priori extremely unlikely ........ intelligence manifests itself by making certain unlikely situations appear."


অর্থাৎ “বুদ্ধিমত্তার উপস্থিতি নিজেকে অভিব্যক্ত করছে কিছু পরিস্থিতিসমূহের সৃষ্টির বা প্রকাশের মাধ্যমে, যে পরিস্থিতিগুলি এমন পূর্বশর্ত, যেগুলির স্বতঃস্ফূর্ত আবির্ভাব অত্যন্ত অসম্ভব......... বুদ্ধিমত্তা নিজেকে অভিব্যক্ত করছে নির্দিষ্ট অসম্ভব পরিস্থিতিগুলিকে বাস্তবে আবির্ভূত করানাের মধ্য দিয়ে।।




 আদিম পরিবেশ ::- পদার্থের জটিল কোষে সংশ্লেষণের চেয়ে বিশ্লিষ্ট হবার দিকে ভারসাম্য ছিল বেশি, নােবেলজয়ী বিজ্ঞানী জর্জ ওয়াল্ডঃ


“জীবন সৃষ্টির প্রক্রিয়াগুলির বিপুল সংখ্যাধিক্যে – যাতে আমরা আগ্রহী, ভারসাম্যের কেন্দ্রটি অনেক বেশি পরিমাণে বিয়ােজনের (বিগলন) দিকে। 

অর্থাৎ, স্বতঃস্ফূর্ত-বিয়ােজন (পারমাণবিক কণাগুলির স্ব-সৃষ্টি ধ্বংসের প্রক্রিয়া) অনেক বেশি (নির্দিষ্ট সিকোয়েন্সের অণুবিন্যাস আপনা থেকে তৈরী হওয়ার চেয়ে) সম্ভাবনাপূর্ণ এবং সেইজন্য ঐ প্রক্রিয়াটি স্বতঃস্ফূর্ত সংশ্লেষণের চেয়ে (আকস্মিকভাবে অণুবিন্যাস গঠনের চেয়ে) ......। 


আমরা যে পরিস্থিতির মুখােমুখি হতে বাধ্য তা হচ্ছে সেই রােগী পেনিলােপের ওডিসিয়াসের জন্য অপেক্ষা করার মতাে, কিন্তু তার চেয়ে আমাদের অবস্থা অনেক বেশি করুণ::- প্রতি রাত্রে পেনিলােপ তার আগের দিনের বােনা সূচীশিল্প খুলে ফেলত, কিন্তু এখানে (জৈব অণু তৈরী) একটি রাত্রি সহজেই এক বছরের কিংবা এক শতাব্দীর কম সময়ে ধ্বংস করে দিতে পারত।


বিজ্ঞানী স্ট্যানলি মিলার::-


পরীক্ষাগারে অ্যামাইনাে অ্যাসিড পাউডার তৈরী করে সাড়া ফেলেন স্ট্যানলি মিলার। বিশ্বের সংবাদ মাধ্যমে শিরােনাম প্রকাশিত হয় ঃ “Miller creates life; কিন্তু বহু বছর গবেষণার পরও একটি মাত্র কোষ তৈরী করতে না পেরে জীবন সৃষ্টির চেষ্টা ত্যাগ করেন মিলার।

সরল অ্যামাইনাে অ্যাসিড আর জীবন —কত ব্যবধান ? জীবন দূরে থাক, একটি জীবিত কোষের জন্য প্রয়ােজনীয় প্রােটিনের মতাে জটিল শৃঙ্খলাপূর্ণ যৌগ অণু পলিমার তৈরীও সম্ভব নয়। 


বিবর্তনবাদী বিজ্ঞান পত্রিকা ‘Earth' -এ ‘Life's crucible' নামের একটি প্রবন্ধে, (১৯৯৮, ফেব্রুয়ারী ) মিলারের স্বীকারােক্তি জানিয়ে লেখা হয় ? “Miller himself throws up his hands at that part of the puzzle. "It's a problem," he sighs with exaspiration. “How do you make polymers? That's not so easy."


জানুয়ারী ১৯, ১৯৯৯-এ অরিজিন অব লাইফের উপর এক সেমিনার ক্লাসে মিলার বলেন , "Making compounds and making life are two different things.” হেরল্ড সি উরেই, স্টানলি মিলারের শিক্ষক ও তাঁর পরীক্ষায় পরামর্শদাতা ঃ

"All of us who study the origin of life find that the more we look into it, the more we feel it is too complex to have evolved anywhere. We all believe, as an article of faith, that life evolved from dead matter on this planet. It is just that it's complexity is so great, it is hard for us to imagine that it did."


“আমরা যারা প্রাণের উদ্ভব নিয়ে গবেষণা করি, তারা দেখতে পান  যে, যতই আমরা এর গভীরে তাকাই, ততই আমরা অনুভব করতে থাকি যে এটি এতই জটিল যে যেকোন জায়গায় এটি হঠাৎই উদ্ভূত হতে পারে না। আমরা সবাই এই বিশ্বাসে বিশ্বাসী যে জীবন এই গ্রহে কোন একদিন মৃত জড় পদার্থ থেকে উদ্ভূত হয়েছিল। বিষয়টিতে জটিলতার পরিমাণ এতই বিপুল যে, সত্যিই যে জড় পদার্থ থেকে জীবন সৃষ্টি হয়েছিল, তা আমাদের পক্ষে কল্পনা করা কঠিন।” দুই শতাব্দী পেরােলাে, সমাধান নেইঃ


সানদিয়াগাে স্ক্রীস ইনস্টিটিউটের Jeofrey Bada র মন্তব্যে ফুটে উঠেছে বিবর্তনবাদী বিজ্ঞানীদের হতাশা ::-

 "Today, as we leave the twentieth century, we still face the biggest unsolved problem that we had when we entered the twentieth century : How did life originate on Earth?" 


“আজ আমরা যখন বিংশ শতাব্দীকে বিদায় জানাচ্ছি, তখন আমরা এখনও সেই একই বৃহত্তম সমস্যাটির মুখােমুখি হচ্ছি, আমরা বিংশ শতাব্দীতে প্রবেশ করার সময়ও যার মুখােমুখি হয়েছিলাম ও কিভাবে এই পৃথিবীতে জীবনের উদ্ভব হলাে ?”


 প্রফেসর রিচার্ড ডকিন্স ঃ -

পৃথিবীতে বিবর্তনবাদের একজন পুরােধা ব্যক্তিত্ব ও প্রচারক, লেখক, বিজ্ঞানী ও প্রফেসর

“সুতরাং আমরা যে ধরনের সৌভাগ্যপূর্ণ ঘটনার (হঠাৎ'জড় পদার্থ সংশ্লেষিত হয়ে কোষ তৈরী) খোঁজ করছি, সেটা এতই বিপুলভাবে অসম্ভব হতে পারে যে বিশ্ব ব্রহ্মান্ডের কোথাও এটি ঘটার সম্ভাবনা এতই কম হতে পারে যে তার জন্য শত কোটি গুণ কোটি কোটি-কোটি বছরের যেকোনো কোন এক বছরে একবার (One in a billion billion billion in any one year) ঘটতে পারে।”


Evolution from Space বিজ্ঞান বইয়ের লেখক প্রখ্যাত বিজ্ঞানী ফ্রেড হয়েল ও চন্দ্র বিক্রমসিংহেঃ----


একদল বাঁদরের টাইপরাইটারে দাপাদাপিতে সেক্সপীয়রের নাটক?

“যত বিপুল আকারের পরিবেশের কথা একজন ভাবুন না কেন, জীবন হঠাৎ আপনা থেকে উৎপন্ন হয়ে যেতে পারে না। একদল বাঁদর টাইপরাইটারে আবােল তাবােল চাবি টিপে গেলে শেক্সপীয়রের রচনাকর্ম তৈরী হয়ে যায় না; এই বাস্তব কারণের জন্য এই সমগ্র দৃশ্যমান ব্রহ্মান্ডে প্রয়ােজনীয় সংখ্যক (প্রায় অনন্ত) বাঁদরদল, টাইপ রাইটার, এবং নিশ্চিতভাবেই ভুল চেষ্টায় উৎপন্ন আবর্জনা ফেলার পাত্রগুলির স্থান সংকুলানের জন্য এই বিশ্বব্রহ্মান্ড যথেষ্ট বিশাল নয়। জীবিত বস্তু (কোষ) প্রভৃতি তৈরী হওয়া সম্বন্ধেও একই কথা প্রযােজ্য।


 স্যার ফ্রেড হয়েল ঃ এক টুকরাে বাস্তব প্রমাণও নেই। 


"In short there is not a shred of objective evidence to support the hypothesis that life began in an organic soup here on the earth.


" সার কথা হচ্ছে, এখানে এই পৃথিবীতে জৈবরাসায়নিক তরলে জীবনের উদ্ভব হয়েছে, এই ধারণা প্রকল্পটির সমর্থনে একটুকরাে বাস্তব প্রমাণও নেই।” প্রফেসর অফ অ্যাপলায়েড ম্যাথ অ্যান্ড অ্যাস্ট্রনমি, চন্দ্র বিক্রমসিংহেঃ। 

“We used to have an open mind; now we realize that the only logical answer to life is creation - and not accidental random shuffling." “At the moment, I can't find any rational argument to knock down the view which agrues for conversion to God.”


 “আমরা খােলা মনে সব কিছু বিশ্লেষণ করতাম;এখন আমরা বুঝতে পারছি যে জীবনের উদ্ভবের একমাত্র যুক্তিগ্রাহ্য উত্তর হচ্ছে জীবন সৃষ্টি করা হয়েছে এটি অণুকণাসমূহের বিশৃঙ্খল অ্যাসিডেন্টাল মিশ্রণ থেকে হঠাৎ উৎপন্ন হওয়া কিছু নয়।”


 “এই মুহুর্তে, জীবনের উদ্ভব ভগবান থেকে এই দৃষ্টিভংগীকে ধরাশায়ী করার ন্যায়সঙ্গত কোন যুক্তিই খুঁজে পাচ্ছিনা।”-.


. পেরি বিভ্স , রসায়নবিজ্ঞানী:: 


প্রথম কোষ তৈরীর জন্যও প্রয়ােজন হয়েছে একটি মাস্টার প্লান এবং একজন নির্মাতার-"When one examines the vast number of possible structures that could result from a simple random combination of amino acids in an evaporating primal pond ; it is mind-boggling to believe that life could have originated in this way. It is mere plausible that a Great Builder with a master plan would be required for such a task."

* "So the sort of lucky event we are looking at could be so widely improbable that the chances of its happening, somewhere in the universe, could be as low as one in a billion billion billion in any one year."





Click Here >>>Subscribe






Comments

y3

yX Media - Monetize your website traffic with us Monetize your website traffic with yX Media Monetize your website traffic with yX Media

This Blog is protected by DMCA.com

Subscribe

Enter your email address:

Delivered by FeedBurner

Email Subscription

Enter your email address:

Delivered by FeedBurner

sharethis-inline