Page

Follow

মহাবিশ্বের উদ্ভবঃ দুর্ঘটনা না সুপরিকল্পনা ? স্যার আইজ্যাক নিউটন ভগবানের প্রতি বিশ্বাস PAGE-36

 

 স্যার আইজ্যাক নিউটন ভগবানের প্রতি বিশ্বাস 

PAGE-36



স্কুল-কলেজে  স্যার আইজ্যাক নিউটনকে এমনভাবে উপস্থাপন করা হয় যেন তিনি নাস্তিক ছিলেন, কিন্তু কার্যত তিনি ছিলেন গভীর ভগবদ্ভক্ত। পরম  পুরুষ ভগবানের প্রতি তার শ্রদ্ধা-সুম ছিল চির অটুট। 


বিজ্ঞানজগতে নিউটন একজন প্রাতঃস্মরণীয় ব্যক্তিত্ব, কেননা আধুনিক বিজ্ঞান গবেষণার তিনিই অবিসংবাদিত পথিকৃৎ। সপ্তদশ শতকে জন্মগ্রহণ করেও (১৬৪২-১৭১২) নিউটন ছিলেন চিন্তাধারায় আধুনিক। 


অপটিকস বা আলােক বিজ্ঞান, কেমিস্ত্রি, ম্যাথমেটিকস্ সর্বত্রহ তাঁর সঞ্চরণ ছিল অবাধ, স্বচ্ছন্দ। তিনিই গণিতবিদ্যায় লিবনিজের ডিফারেনশিয়াল ও ইনটোগ্র্যাল ক্যালকুলাসের সমতুল মেথড অব ফ্লক্সিয়ন এর উদ্ভাবক। 



মেকানিক্স ও গ্রাভিটেশানে তার গবেষণা তাকে তৎকালীন বিজ্ঞানজগতে পুরােধা ব্যক্তিত্বে পরিণত করে। তিনিই প্রথম ব্যক্তি যিনি যুদ্ধক্ষেত্র নয়, বিজ্ঞানজগতে কাজ করে ক্যামব্রিজ -এ নাইট খেতাব পান মহারাণী অ্যানের কাছ থেকে, নির্বাচিত হন রয়াল সসাসাইটি অব লন্ডনের ফেলাে, এবং পরে প্রেসিডেন্ট। 


 কিন্তু তাঁর বিজ্ঞানচর্চা তার ভগবদ্ভক্তিকে হ্রাস করেনি, বৃদ্ধি করেছে। উচ্চতর শিক্ষালাভের জন্য তিনি যখন কেম্ব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে আসেন, তখন তাঁর অধ্যয়নের অন্যতম বিষয় ছিল গণিত ও থিওলজি বা অধ্যাত্মবিদ্যা।


 নিউটন সত্যকে গ্রহণ করতে শিখেছিলেন —চাপানাে ধারণাকে নয়;‘কোয়েশ্চেনাস কোয়াডাস ফিলসফিকা’ নামের নিউটন-রচিত ল্যাটিন সংকলনে বিধৃত রয়েছে তার উক্তি : “Plato is my friend, Aristotle is my friend, but my greatest friend is truth” —অর্থাৎ প্লেটো আমার বন্ধু, অ্যারিস্টটল আমার বন্ধু, কিন্তু আমার সর্বশ্রেষ্ঠ বন্ধু হচ্ছে সত্য।




”জি. সিমনস  তাঁর ক্যালকুলাস জেম্স্ বইয়ে উদ্ধৃত করেছেন। নিউটনের দের্থহীন উক্তি  : “God created everything by number, weight and measure.” অর্থাৎ “ভগবান সবকিছুই সংখ্যা, ওজন ও পরিমাপের ভিত্তিতে সৃষ্টি করেছেন।”


 তাঁর নাস্তিক বন্ধু স্যার এডমন্ড হ্যালি ধর্ম সম্বন্ধে কোন অশ্রদ্ধাসূচক মন্তব্য করলে নিউটন তাকে বলেছিলেন, “I have.studied things. You have not”* অর্থাৎ ‘আমি সবকিছু পর্যবেক্ষণ, অধ্যয়ন করেছি, তুমি করনি।


 নিউটন তাঁর মেকানিক্স্ -এ পার্টিকল স্পেস ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বলেন যে কঠিন শক্ত গ্যাস সব জড় পদার্থ নির্দিষ্ট আকার আয়তনে সর্বপ্রথমে ভগবানের অধ্যক্ষতায় উদ্ভূত হয়েছে**।


নিউটন তার ছাত্রাবস্থা থেকেই বাইবেল পড়তেন, পরবর্তীতে তিনি ক্রীশ্চান ধর্মের উপর একটি বইও লিখেছিলেন (প্রফেসিস অব ড্যানিয়েল)। আইজ্যাক নিউটন বিশ্বের ক্লাসিক বিজ্ঞানীদের মধ্যে অন্যতম হিসাবে বিজ্ঞানীমহলে স্মরণীয় তিনি সংস্কার, বিশ্বাস থেকে নিজের ধারণা গঠন করেননি;


তিনি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করেছেন প্রকৃতিকে। আইনস্টাইন নিউটন সম্বন্ধে বলেন, “প্রকৃতি তার কাছে ছিল একটি খােলা বই, যার অক্ষরগুলি তিনি পড়তে পারতেন।”আর প্রকৃতির অন্তরালে অভিব্যক্ত গভীর বুদ্ধিমত্তা তাঁকে  পরম বুদ্ধিমত্তাপূর্ণ অনন্ত শক্তি বিশিষ্ট পরমপুরুষ ভগবানের প্রতি সন্ত্রম-শ্রদ্ধায় পূর্ণ করেছে আজীবন।।


Click Here >>>Subscribe






Comments

y3

yX Media - Monetize your website traffic with us Monetize your website traffic with yX Media Monetize your website traffic with yX Media

This Blog is protected by DMCA.com

Subscribe

Enter your email address:

Delivered by FeedBurner

Email Subscription

Enter your email address:

Delivered by FeedBurner

sharethis-inline