Adsterra 7

         

         

Follow

ভগবান শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভু। ভগবত্তার শাস্ত্র-প্রমাণ,ভবিষ্যৎবাণী।PAGE-205




  ভগবান শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভু। ভগবত্তার শাস্ত্র-প্রমাণ,ভবিষ্যৎবাণী।PAGE-205


পরমপুরুষ ভগবান শ্রীকৃষ্ণস্বয়ং শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুরূপে কলিযুগে অবতীর্ণ হবেন এবং বিশ্ববাসীকে সবচেয়ে দুর্লভ অধ্যাত্ম সম্পদ দান করবেন, হাজার হাজার বছর পূর্বে বহু শাস্ত্রো তাঁর বিতর্কাতীত  ভবিষ্যদ্বাণী রয়েছে। শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভু কলিযুগের যুগধর্ম পৃথিবীব্যাপী প্রবর্তন করেন। তাঁর  শিক্ষা সম্পূর্ণভাবে ভগবদগীতার শিক্ষার সঙ্গে অভিন্ন— তিনি কিছুই সংযােজন বা বিয়ােজন করেননি। ভগবদগীতার জ্ঞান শাশ্বত;ভগবানও শাশ্বত। ভগবান শ্রীকৃষ্ণচৈতন্য মহাপ্রভু উপনিষদুক্ত শাশ্বত আদিত্যবর্ণ হিরন্ময় পুরুষ।


ঋগ্বেদ

 ১. সেমংনঃ স্তোমমাগহি..... গৌরাে ন তৃষিত পিব।।

—৫৷৷ ১ মন্ডল, ১৬ সুক্ত ৫ মন্ত্র। 


“হে ভগবান গৌরাে! সূর্যরশ্মি সম্মিলনাকাঙ্খী চন্দ্রের মতাে তৃষিত এই ভক্তমণ্ডলীর সমীপে আগমনপূর্বক দিব্য সংকীর্তনানন্দ আস্বাদন করুন।” 


২, অগ্নেঃ পূৰ্ব্বে ....... বরুণং দুরমায় গৌরােন ক্ষেপনোরবীজে   জ্যায়া।

—মঃ ১০/৫১/৬ 


“অগ্নিদেব জলধিপতি দেবতা বরুণদেবকে বলছেন আমি আমার পূর্বতন ব্রহ্মাদি ভ্রাতাদেরও মৃত্যু দর্শন করে মৃত্যুভয়ে ভীত হয়ে বহু দেশ ভ্রমণ করার পর মৃত্যুর লক্ষ্যের বাইরে শ্রীগৌরদেবের চরণ আশ্রয় করেছি যা আশ্রয়ে নিরুদ্বেগ হওয়া যায়।”



অথর্ববেদ


 ৩. পুরুষবােধিনী সুক্ত ::: সপ্তমে গৌরবর্ণো বিষ্ণুরিত্যনেন স্বশক্ত চৈতন্যমেত্য প্রাপ্তে... শিক্ষায়তি।” 


“সপ্তম মন্বন্তরে বিষ্ণু গৌরবর্ণ নিজশক্তির সাথে চৈতন্যনাম ধারণ পূর্বক নিজভক্ত সঙ্গে নিজনামমন্ত্র শিক্ষা দান করেন।”


পিপ্পলাদশাখা, শ্লোক-১৫ ঃ


 চৈতন্য এব সঙ্কর্ষণঃ বাসুদেবঃ পরমেষ্ঠী রুদ্রঃ। শুক্রো বৃহস্পতিঃ সৰ্ব্বদেবঃ সর্বাণি স্থাবরাণি  চরাচরাণি চ যৎকিঞ্চিৎ সদসৎকারণং সর্বম ।


“শ্রীচৈতন্যদেবই সঙ্কর্ষণ  ও বাসুদেব, তাঁর থেকে ব্রহ্মা, রুদ্র, ইন্দ্র, বৃহস্পতি-সহ সর্ব দেবতা বিনির্গত হয়। তিনি সচর-অচর ও ক্ষণস্থায়ী অস্তিত্বের স্তর ও নিত্য অস্তিত্বের স্তরের জীব -সকল জীবসত্তার উদ্ভবের কারণ।



৫. পিপলাদশাখা, শ্লোক ৬

একো দেব সৰ্বরূপে মহাত্মা

 গৌর রক্তং শ্যামল শ্বেতরূপ ঃ 

চৈতন্যাত্মা স বেঃ চৈতন্যশক্তি

ভক্তকরাে ভক্তিদ ভক্তিবেদরে।। 


“সেই এক অদ্বয় পরমেশ্বর ভগবান গৌররূপে অবতীর্ণ হন- পূর্বে যিনি রক্ত, পীত ও শ্বেত কান্তি  পরিগ্রহ করে অবতীর্ণ হয়েছিলেন। ভগবান তার এই আদি শ্রীচৈতন্যরূপে সকলের চেতন শক্তি; তিনি ভক্তির মূর্ত-বিগ্রহ, তিনি ভক্তিদাতা, তিনিই আবার ভক্তিবেদ্য এবং তিনি সর্বজ্ঞ।”


৬ সামবেদ ::


 অথাহং কৃতসন্ন্যাসসা ভূগীৰ্ব্বাণােহবতরিষ্যে।

 তীরেহলকানন্দায়াঃ পুন পুনরীশ্বর প্রার্থিতঃ সপরিবারাে

নিরালম্ব নির্ধূত কলিকল্মষ-কবলিত-জনাবলম্বনায়।।


 “আমি পুনঃ পুনঃ ঈশ্বর প্রার্থিত হয়ে সন্ন্যাস গ্রহণ পূর্বক অন্যাশয় নিরপেক্ষ ও অবিচলিত ভাবে কলি-কলুষ কবলিত জীবের উদ্ধারার্থ সপরিবারে অলকানন্দার তীরে অবতীর্ণ হব।”


৭.শ্বেতাশ্বতর উপনিষদ (৩/৮)।


  বেদাহমেতং পুরুষং মহান্ত আদিত্যবর্ণং তমসঃ পরস্তাৎ। ত্বমেব বিদিত্বাহতি মৃত্যুমেতি নান্যঃ পন্থা বিদ্যতেহয়নায়।।। 


“আমি সেই সূর্যের মতাে উজ্জ্বলবর্ণ মহান পুরুষকে জেনেছি, যাঁকে জানলে মৃত্যুকে অতিক্রম করা যায় মৃত্যুকে অতিক্রম করার অন্য কোন পথ নেই।”



৮.চৈতন্য উপনিষদ - শ্লোক:::: রহস্যং তে বদিষ্যামি—জাহ্নবী তীরে নবদ্বীপে গােলােকার্ধে ধাম্নি গােবিন্দো দ্বিভূজো গৌরঃ সৰ্বাত্মা মহাপুরুষাে মহাত্মা মহাযােগী ত্রিগুণাতীতঃ সত্ত্বরূপাে ভক্তিং লােকে কাশ্যাতীতি।


“আমি তােমাকে সেই রহস্য বলব ! গােলােক নামে খ্যাত নবদ্বীপ ধামে জাহ্নবীতীরে ভগবান শ্রীগােবিন্দ ত্রিগুণাতীত সর্বাত্মা মহাযােগী মহাপুরুষ মহাত্মা দ্বিভুজ গৌর রূপে অবতীর্ণ হবেন। নিত্য শাশ্বত স্বরূপে সেই ভগবান পৃথিবীতে ভক্তিরহস্য প্রকাশ করবেন।”


বৃহন্নারদীয় পুরাণ 


৯. দিবিজা ভুবি জয়ধ্বং জায়ধ্বংঅনুস্বায় ভক্তরূপিণঃ।।

কলৌ সংকীর্তনারম্ভে ভবিষ্যামিশচীসূতঃ ।।


 শ্রীভগবান বললেন “হে দেবগণ! তােমরা পৃথিবীতে ভক্তরূপে জন্মগ্রহণ কর। আমি কলিতে সঙ্কীর্তনারম্ভে শচীসূত রূপে আবির্ভূত হব।”


 ১০: গরুড় পুরাণ

কলৌ প্রথম সন্ধ্যায়াং লক্ষ্মীকান্তো ভবিষ্যতি।

দারুব্রহ্ম সমীপন্থঃ সন্ন্যাসী গৌরবিগ্রহঃ।।। 

অহমেব পরং ব্রহ্ম সচ্চিদানন্দবিগ্রহঃ।

হরেনাম-কীৰ্ত্তনেন তারয়ামি কলৌ-নরান।


 “কলিতে প্রথম সন্ধ্যায় ভগবান লক্ষীকান্ত সন্ন্যাসী গৌরবিগ্রহ রূপে পুরুষােত্তম ধামে (পুরীতে) দারুব্রহ্ম শ্রীশ্রীজগন্নাথদেবের নিকটে অবস্থান করবেন। (শ্রীভগবান বললেন) “পরমব্রহ্ম সচ্চিদানন্দবিগ্রহ আমি দিব্য হরিনাম-কীর্তন দ্বারা কলিযুগে জীবগণকে উদ্ধার করি।”


১১. কলিনা দহ্যমানানাং পরিত্রায় তনুভূতাম্।।

জন্ম ঃ প্রথম সন্ধ্যায়াং করিষ্যামি দ্বিজাতিষু ৷৷


 “কলি-পাপ দহ্যমান মানুষদের পরিত্রাণ করার জন্য আমি কলির প্রথম সন্ধ্যায় দ্বিজকুলে আবির্ভূত হব।”


১২.ভবিষ্যপুরাণ 


আনন্দাশ্রুকলা -রােমহর্ষ পূর্ণং তপােধন।।

সৰ্ব্বে মামেব দ্রক্ষ্যান্তি কলৌ সন্ন্যাসিরূপিণম্।।

কলৌ সন্ন্যাসিরূপেণ বিচরামি চরাচরম্।। 


“হে তপােধন! কলিতে সকলেই আমাকে আনন্দাশ্রুকলা ও রােমহর্যপূর্ণ কলেবর সন্ন্যাসীরূপে দর্শন করবেন। কলিযুগে সন্ন্যাস গ্রহণ করে আমি সর্বত্র বিচরণ করব।”



১৩.মার্কন্ডেয় পুরাণ


  গােলকঞ্চ পরিত্যজ্য লােকানাং ত্রাণকারানাত ।

কলৌ গৌরাঙ্গরূপেণ লীলা-লাবণ্য-বিগ্রহঃ।।। 


‘পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণ জীবগণকে উদ্ধারের জন্য স্বধাম গােলােক পর্যন্ত পরিত্যাগ করে কলিতে গৌরাঙ্গ রূপে তার অনুপম লীলা-লাবণ্য-বিগ্রহ স্বরূপে অবতীর্ণ হবেন”।


 ১৪.পদ্মপুরাণ।


 কলেঃ প্রথমসন্ধ্যায়াং গৌরাঙ্গোহসৌ মহীতলে।

ভাগীরথ্যাস্তটে ভূয়াে ভবিষ্যতি সনাতনঃ।।।

এই সনাতন শ্রীকৃষ্ণ কলির প্রথম সন্ধ্যায় শ্রীগৌরাঙ্গরূপে পৃথিবীতে ভাগীরথী -তীরে পুনর্বার অবতীর্ণ হবেন।”


 শ্রীমদ্ভাগবত ? 


১৫.কৃষ্ণবর্ণং ত্বিষাহকৃষ্ণং সাঙ্গোপাঙ্গাস্ত্র পার্ষদম । 

যজ্ঞৈঃ সঙ্কীর্তনপ্রায়ৈজন্তি হি সুমেধসঃ।

—১১/৫/৩২ 


“এই কলিযুগে সুমেধাসম্পন্ন ব্যক্তিগণ অবিরাম কৃষ্ণ-কীর্তনকারী ভগবানের অবতারকে আরাধনা করার জন্য সংকীর্তন যজ্ঞের অনুষ্ঠান করেন। যদিও তার গায়ের বর্ণ অ-কৃষ্ণ (গৌরােজ্জ্বল), তবুও তিনি স্বয়ং শ্রীকৃষ্ণ। তিনি তাঁর সঙ্গী, সেবক, অস্ত্র এবং অন্তরঙ্গ পার্ষদে পরিবৃত।”


মহাভারত ।

 ১৬. সুবর্ণবর্ণো হেমাঙ্গ রাঙ্গশ্চন্দনাঙ্গদী।

সন্ন্যাস কৃচ্ছমঃ শান্তো নিষ্ঠাশান্তিপরায়ণ ঃ ।।। 


“পরমপুরুষ ভগবান শ্রীগৌরাঙ্গ মহাপ্রভুর গায়ের রঙ সােনার মতাে। প্রকৃতপক্ষে, তার সুললিত সমগ্র দেহটি কাঁচা  সােনার মতাে। তার সমস্ত দেহ চন্দনচর্চিত। তিনি সন্ন্যাস গ্রহণ করবেন এবং খুব আত্মসংযমশীল হবেন। তিনি ভক্তিমূলক সেবায় নিষ্ঠাপরায়ণ এবং সংকীর্তন আন্দোলন প্রচার করবেন।” আরও অনেক শাস্ত্রোক্তি রয়েছে।


শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভু অবতীর্ণ হন ১৪৮৬ খ্রীষ্টাব্দে, মাত্র ৫২০ বছর পূর্বে। কিন্তু তার আবির্ভাবের হাজার হাজার বছর পূর্বেই শাস্ত্রে তার নাম রূপ-গুণ-কার্যাবলী সংক্রান্ত অভ্রান্ত ভবিষ্যদ্বাণী রয়েছে। এখনাে তার আবির্ভাবের পূর্বে রচিত তালপাতার পুঁথির শাস্ত্র ভারতের নানা সংরক্ষণাগারে সংরক্ষিত রয়েছে, যেমন কোলকাতার এশিয়াটিক সােসাইটি। ঐ শ্লোকগুলি পরে প্রক্ষিপ্ত এমন সন্দেহের কোন স্থান নেই। 


উপরে সব শাস্ত্রোক্তি দেওয়া হয়নি, অংশবিশেষ উদ্ধৃত করা হয়েছে। জড়বাদী সভ্যতার মধ্যেও শুদ্ধ ভগবৎ-প্রেমভিত্তিক সংকীর্তন  আন্দোলনের প্রসার, বিশ্বের লক্ষ লক্ষ মানুষের নেশা-মাংসাহার পরিত্যাগ করে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের সেবায় ব্রতী হওয়া তার প্রবর্তিত আন্দোলনের শক্তি ও পবিত্রতার প্রত্যক্ষ প্রমাণ। শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভু স্বয়ং ভবিষ্যদ্বাণী করেন, সারা পৃথিবীর সমস্ত নগর-শহর-গ্রামে কৃষ্ণভাবনামৃত আন্দোলন পরিব্যাপ্ত হবে। সেটিও এখন প্রত্যক্ষ বাস্তবতায় পরিণত হচ্ছে।


Subscribe For Latest Information






Comments

This Blog is protected by DMCA.com

Subscribe

Enter your email address:

Delivered by FeedBurner

Ads Tera-5

         

         

         

Adsterra Social Bar

Popular Posts

adstera-6

         

Email Subscription

Enter your email address:

Delivered by FeedBurner

EMAIL SUBSCRIPTION

Adstera 1