Page

Follow

সনাতন ধর্ম কি বিজ্ঞান না বিশ্বাস ? কোথায় পাব জীবনের মৌল প্রশ্নগুলির উত্তর || Page-123

 

 সনাতন ধর্ম কি বিজ্ঞান না বিশ্বাস ?
কোথায় পাব জীবনের মৌল প্রশ্নগুলির উত্তর





মানব সমাজকে কুসংস্কার মতান্ধতা থেকে মুক্ত করে একটি সুন্দর, উন্নত চেতনাসম্পন্ন প্রগতিশীল, জ্ঞানােজুল সভ্যতা রচনা উদারমনস্ক মানুষের স্বপ্ন; এই জন্য সারা পৃথিবীতে  বিজ্ঞান শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে, উদ্যমী মানুষের প্রতিষ্ঠা করছেন সায়েন্স ক্লাবের। এই উদ্যোগ প্রশংসনীয়। বিশ্বাস, অনুমান, কুসংস্কার, মতান্ধতা — সভ্যতার প্রগতিকে রুদ্ধ করে, ঠিক যেমন অজস্র শৈবাল দাম রুদ্ধকরে স্রোতস্বিনী নদীর বহমান স্রোতধারা।।


কিন্তু কোন বিজ্ঞান ক্লাসে, বা কোন সায়েন্স ক্লাবে এসে যদি কেউ প্রশ্ন করে, 


**একটি মৃত দেহের সাথে জীবিত দেহের পার্থক্য কি?

**চেতনার উৎস কি?

 **জীবন কি?

 **‘আমি’ -এই ব্যক্তিত্ববােধের রহস্য কি?

 **এই মহাবিশ্বের অস্তিত্ব কেন?

 **বিশ্বজগতের রূপকার রচয়িতা কে? 

**না চাইলেও কেন মেনে নিতে হয় মৃত্যু ?

 **মৃত্যু নামক মৌল সমস্যার সমাধানসূত্রটি কেন আজও আবিষ্কার করা যায়নি জড় বিজ্ঞানে?


 **বিশ্বের কোন পদার্থ ও শক্তি ধ্বংস হয় না,

তাহলে দেহের ধ্বংসের পর কি পরিণতি হয় বিশ্বজগতের সবচেয়ে অত্যাশ্চর্য ও শক্তিশালী বস্তু জীবনীশক্তির? 


**শাশ্বত আনন্দময় এক জীবন লাভের যে চিরঞ্জন অভীপ্সা রয়েছে মানুষের, সেটি পরিপূর্ণ হতে পারে কেমন করে?


বিজ্ঞান নামে অভিহিত বর্তমানের জড়বিজ্ঞান, ম্যাটেরিয়াল সায়েন্স এর উত্তর দিতে পারেনি, কেননা জড়বস্তু ও শক্তি, ম্যটাব আর এনার্জি বাইরে বিজ্ঞানের কোন বিচরণ নেই, জড়ের গন্ডির লক্ষণরেখায় জড়বিজ্ঞান বাঁধা। 


সেজন্য, এমনকি ঐ মৌলিক প্রশ্নগুলি নিয়ে আলােচনা করার যােগ্যতাও অর্জন করেনি জড়বিজ্ঞান ব্রিটিশ জড়বাদী পদার্থবিদ  স্টিফেন হকিং-এর নিজের বইয়ে তাঁর লেখায় সেই অজ্ঞতাজনিত হতাশার সুর ঃ “তখন আমরা এই প্রশ্নটির আলােচনায় অংশগ্রহণে সমর্থ হব-কেন আমাদের ও এই বিশ্বজগতের অস্তিত্ব রয়েছে। আমরা যদি এই প্রশ্নের উত্তর পাই, তাহলে সেটি হবে মানবীয় যুক্তি-বুদ্ধি চরম  বিজয় – কেননা কেবল তখন আমরা ভগবানের অভিপ্রায় জানতে পারব।

 

জড়বিজ্ঞান যেসব প্রশ্নের উত্তর পায়নি, সেইসব প্রশ্নগুলির উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করেছে নির্ভেজাল, অবিমিশ্র অনুমান বা জল্পনা-কল্পনার (Speculations) দ্বারা। 


এজন্য তথাকথিত বৈজ্ঞানিকতত্ত্বগুলি নিয়ে বিজ্ঞানীদের মধ্যেই এত বিতর্ক, বাদ-বিসম্বাদ, মতান্তর।।জড়বিজ্ঞানের চোখধাঁধানাে আবিষ্কারগুলি সাধারণ চিন্তাশক্তিসম্পন্ন মানুষকে এমনভাবে প্রভাবিত করেছে যে তাঁরা জড় বিজ্ঞানের নামে চলা আনুমানিক ধারণাগুলির বৈধতা ও বৈজ্ঞানিক ভিত্তি সম্বন্ধে প্রশ্ন করতেই ভূলে গেছে; এমনকি নােবেলজয়ী বিজ্ঞানীও যদি সেই প্রশ্ন উত্থাপন করেন, বিজ্ঞানের গোঁড়ামিতে আচ্ছন্নরা তাকে ‘বিজ্ঞানমনস্ক নন’ - বলে অভিহিত করতে , বিন্দুমাত্রও কালক্ষেপ করে না, দ্বিধান্বিত হয় না।।

Then we shall be able to take part in the discussion of why it is that  we and the Universe exist .If we find the answer to that, I would be the ultimate triumph of human reason for then we would know the Mind of God."

-Stephen Hawking


Click Here >>>Subscribe






Comments

y3

yX Media - Monetize your website traffic with us Monetize your website traffic with yX Media Monetize your website traffic with yX Media

This Blog is protected by DMCA.com

Subscribe

Enter your email address:

Delivered by FeedBurner

Email Subscription

Enter your email address:

Delivered by FeedBurner

sharethis-inline