Page

Follow

বডি মেশিন অর্থাৎ শরীর সম্বন্ধে কিছু তথ্য । Page-121

  বডি মেশিন অর্থাৎ শরীর সম্বন্ধে কিছু তথ্য । 



 ***মানুষের দেহে প্রায় 100,000,000,000 (100 ট্রিলিয়ন) কোয রয়েছে। 

 ***প্রত্যেক কোষ 90,000,000,000 (90 ট্রিলিয়ন)পরমাণু দিয়ে তৈরী। 

প্রত্যেক কোষে 1,000,000,000,000 বিট ডেটা রয়েছে। 


***একটি কোষের ডি.এন.এ-র ডেটা সংকেত লিখলে বিজ্ঞানীদের হিসাবে 1000 খন্ডের বিশ্বকোষ পূর্ণ হয়ে যাবে। 


*** প্রতি মিনিটে 300,000,000 (ত্রিশ কোটি) কোষ ধ্বংস হয়।। 


*** মানুষের দেহের সমস্ত ডি.এন.এ যদি খুলে পর পর জুড়ে দেওয়া হয়, তাহলে তা 400 বার পৃথিবীর থেকে সূর্য ও সূর্য থেকে পৃথিবীতে পৌঁছাবে। 


*** পাকস্থলীতে প্রায় 35,000,000 পরিপাকগ্রন্থি (digestive glands) রয়েছে।


 • বৃদ্ধির হরমােন নিয়ন্ত্রণ সহ বিভিন্ন অপরিহার্য কাজ করার অঙ্গ পিটুইটারী গ্লান্ড বা সােমগ্রন্থি আকারে একটি মটর দানার মতাে, ওজন এক গ্রামেরও কম—একটি পেপার ক্লিপের ওজনের প্রায় সমান। লিভার বা যকৃৎ প্রায় 500 রকমের বিভিন্ন গুরত্বপূর্ণ কাজ করে থাকে, তৈরী করে 1000 জরুরী এনজাইম।। 


• লিভার প্রতিস্থাপন করতে খরচ হয় 50 লক্ষ থেকে 1 কোটি টাকা। 


* দুটি কিডনীতে প্রতিদিন 500 গ্যালন রক্ত পরিত হয়, আর এজন্য দুটি কিডনীতে রয়েছে 20 লক্ষ ছােট টিউব, যাদের মিলিত দৈর্ঘ্য হবে 60 কিলােমিটার।


 * দেহে 206 টি হাড় রয়েছে, কেবল হাতে রয়েছে 52 টি ।


 * দেহের চামড়ার প্রতি বর্গ ইঞ্চিতে 600 টি পেইন সেন্সর বা ব্যথা সংবেদক, 12 ফুট স্নায়ু তন্তু, 1300 স্নায়ু কোষ, 7000 স্নায়ু-প্রান্ত, 36 টি হিট সেন্সর বা তাপ সংবেদক; 75 টি প্রেসার সেন্সর বা চাপ সংবেদক, 60,000 রঞ্জক কোষ, 100 ঘর্মগ্রন্থি, 30 লক্ষ কোষ থাকে।


** • অস্থি-মজ্জায় প্রতি সেকেন্ডে 20 থেকে 30 লক্ষ লােহিত কণিকা তৈরী হয়। 


*** গর্ভস্থ ভুণের মস্তিষ্কে প্রতি মিনিটে 2,50000 নিখুত ডিজাইনের নিউরােন তৈরী হতে থাকে।


*** মস্তিষ্কের হাইপােথেলামাস মাত্র 4 গ্রাম ওজনের, নিয়ন্ত্রণ করে অসংখ্য শারীরবৃত্তীয় কাজ— যেমন তাপমাত্রা ঠিক রাখা। কোন ব্যরােমিটারে তাপ মাপে মস্তিষ্ক –98.4°C

—বিশ্বের সমস্ত মানুষের দেহের স্বাভাবিক তাপ? 


*** মস্তিষ্কের SCN ক্লকের আয়তন মাত্র 0.3 কিউবিক মিলিমিটার, কার্যকারিতায় অত্যাধুনিক ঘড়িকেও লজ্জা দেয়।  


*** শুধুমস্তিষ্কের নিউরােনে প্রতিদিন 120 ভােল্ট ব্যাটারীতে উৎপন্ন বিদ্যুতের সম পরিমাণ বিদ্যুৎ সঞ্চালিত হয়।। 


**• বিদ্যুৎ প্রবাহ ছাড়া নিমেষেই বন্ধ হয়ে যাবে হৃৎপিন্ড, অসাড় হয়ে পড়বে কোটি কোটি স্নায়ু।


দেহযন্ত্র ঃ দুর্বোধ্য বিজ্ঞানীদের কাছেও


 "The mysteries of this machine called man. Oh, the little that unhinges it, poor creatures that we are." —চার্লস্ ডিকেন্স 


“Not Merely A Machine” শিরােনামের একটি নিবন্ধে দি টেলিগ্রাফ (19-12-2005),


 Know-How জানাচ্ছে, শরীর-যন্ত্রটি চিকিৎসাবিজ্ঞানেও দুর্বোধ্য ?

‘The body is a machine, and with the right bit of tinkering, can be fixed accordingly. That's the theory, anyway. The reality is, of course, rather different. While doctors might sometimes like to think otherwise, they don't know it all. The medical model is not infallible. In fact, the more you understand it, the more you realise we don't really know very much at all."



SL No.বিবর্তনবাদ মূলক
তত্বের  ভবিষ্যদ্বাণী
 (Predictions of Evolution Model)
সৃষ্টিবাদের মডেলের
 ভবিষ্যদ্বাণী
 (Predictions of Creation
Model) 
বাস্তব জগতে যা
দেখাযায়। (Fact as
found in the Real World)



1জীবনের উদ্ভব হয়েছে
আকস্মিকভাবে হঠাৎ
 অজৈব রাসায়নিক
পদার্থের বিক্রিয়ায়।

জীবনের সৃষ্টি হয় কেবল
পূর্ববর্তী জীবন থেকে।
মূলগতভাবে সমস্ত প্রাণ
 কণা বা চেতন জীব-সত্তার
 সৃষ্টি হয়েছে একজন
 বুদ্ধিমানস্রষ্টার থেকে।
১) জীবন  কেবল পূর্ববর্তী
কোনো জীবন থেকে আসে।
 2) এককোষী,তথাকথিত ‘
আদিমজীবেও রয়েছে
জটিল জেনেটিক কোড,
কোনভাবেই দৈবক্রমে
তা সৃষ্টি হতে পারে না। 

2 জীবাশ্ম বা ফসিল-নিদর্শনে
পাওয়া উচিতঃ ১।সরল
জীব-প্রজাতির ধীরে ধীরে
 উৎপত্তি হচ্ছে, এদের থেকে
 উদ্ভব হচ্ছে উন্নত, জটিল
প্রজাতির। ২, সরল ও জটিল উভয়
 প্রজাতির অন্তবর্তী দেহরূপণ্ডলি।
জীবাশ্ম নিদর্শনে যা
 পাওয়া যাবে।  ১। জটিল
জীব-প্রজাতিগুলি বিপুল
রাবৈচিত্রাসহ হঠাৎ
যুগপৎ আবির্ভূত হয়।
২। বিভিন্ন মুখ্য প্রজাতিদের
পারস্পরিক ব্যবধান সুস্পষ্ট
:এদের সংযােগ-সুত্র কিছু নেই।
 জীবাশ্ম নিদর্শনে যা
পাওয়া যাচ্ছে ::১। জটিল
জীবপ্রজাতির বিপুল
সংখ্যায় হঠাৎ আবির্ভাব।।
২। প্রতিটি নুতন প্রজাতি
 'পূর্ববর্তী' প্রজাতি থেকে
পৃথক কোনাে সংযোগসূত্র নেই।
3ধীরে ধীরে নূতন প্রজাতির
উদ্ভব হয় বিভিন্ন অন্তবর্তী
পর্যায়গুলিতে অসম্পূর্ণ
হাড় কাঠামাে ও অসম্পূর্ণ
প্রত্যঙ্গের সূচার নিদর্শন
পাওয়া যাবে।
কোন নৃতন প্রজাতির
পর্যায়ক্রমিকভাবে আবির্ভাব
 ঘটে না; কোন অসম্পূর্ণ
 হাড় বা প্রত্যঙ্গ দেখা
যাবে না —সমস্ত প্রত্যঙ্গ
হবে পরিপূর্ণভাবে সুগঠিত। 
কোন নুতন প্রজাতির
ধীরে ধীরে আবির্ভাব
ঘটছে না; কোন অসম্পূর্ণ
ভাবে তৈরী হাড় বা
অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ নেই। 
4  পরিব্যক্তি (মিউটেশন)
সর্বশেষ ফল-কল্যাণকর
 নূতন বৈশিষ্ট্য - সমূহের
 সৃষ্টি হয়।
জটিল জীব-প্রজাতির
 জন্য পরিব্যক্তি ক্ষতিকর;
এর ফলে নূতন কোনাে
প্রজাতির সৃষ্টি হয় না।
ছােট ছােট পরিব্যাক্তিগুলি
 ক্ষতকর, বড় ধরনের
পরিব্যক্তি মারাত্মক
(যেমন ক্লোনিং করা
জীৱে আয়ু অর্ধেক্য নয়) এ
র ফলে নূতন কোনাে
প্রজাতির উদ্ভব হয় না। 
5
বিবর্তন-ধারা অব্যাহত,
 তাই নূতন নূতন প্রজাতি
দেখা দেবে নিয়মিত
 ভাবে, সময়ের গতিতে।


সমস্ত প্রজাতিআগে
থেকেই রয়েছে কোনাে
নূতন  প্রজাতির সৃষ্ট
হবেনা;প্রজাতিগুলির।
 কোনাে মুখ্য পরিবর্তন
হবেনা।
সব প্রজাতির অস্তিত্ব
আগে থেকেই রয়েছে,
 কোনাে নূতন প্রজাতির
আবির্ভাব হচ্ছে না,
প্রজাতিগুলি কোনো মুখ্য
পরিবর্তন হচ্ছেনা।
6 সভ্যতার উৎপত্তি
পর্যায়ক্রমিক ভুল, প্রায়
পশুসুলভ বর্ববতার ভিত্তি
থেকে ক্রমশ সভ্যতার উদ্ভব।
মানুষের অস্তিত্বের সাথে
সাথেই সভ্যতা দেখা দিয়েছে,
প্রথম থেকেই উন্নত
ও অনুন্নতের সংমিশ্রণ।
মানুষের সাথে সাথেই
সভ্যতাব আবির্ভাব
সভ্যতারসাথে সাথেই
রয়েছেঅরণ্যবাসী
মানুষের অস্তিত্ব।


Click Here >>>Subscribe






Comments

y3

yX Media - Monetize your website traffic with us Monetize your website traffic with yX Media Monetize your website traffic with yX Media

This Blog is protected by DMCA.com

Subscribe

Enter your email address:

Delivered by FeedBurner

Email Subscription

Enter your email address:

Delivered by FeedBurner

sharethis-inline