Follow

কোষের ডিএনএ এর মধ্যে বিস্ময়কর কার্যকলাপ ||সুপারফাস্ট কমপিউটার DNA মিনিটে ১০ কোটি প্রতিলিপি তৈরী || Page-82

 কোষের ডিএনএ এর মধ্যে বিস্ময়কর কার্যকলাপ ||সুপারফাস্ট কমপিউটার DNA মিনিটে ১০ কোটি প্রতিলিপি তৈরী


সুপারফাস্ট কমপিউটার DNA

মিনিটে ১০ কোটি প্রতিলিপি তৈরী



 কোষ - বিজ্ঞানের বিস্ময় ;মানুষের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি এখনাে পর্যন্ত এমন সূক্ষ্ম অথচ অত্যাশ্চর্য টেকনােলজিক্যাল মার্ভেল সৃষ্টি করতে পারে নি। এক মিলিমিটারের লক্ষ লক্ষ ভাগের এক ভাগ আয়তনের একটি কোষের ক্রোমােজোমগুলির মধ্যে হাজার হাজার বেস-পেয়ারের DNA থাকে, আর প্রত্যেক DNA -তে থাকে কোটি কোটি নিউক্লিওটাইডের তৈরী জেনেটিক কোড ল্যাংগুয়েজ।


 এর একটি অক্ষরের বিন্যাসের হেরফের জীবদেহে বিপর্যয় আনতে পারে। কোষ বিভাজিত হয়ে দুটি , দুটি থেকে চারটি তৈরী হতে থাকে। কোষ বিভাজন ছাড়া দেহের ক্ষয়পূরণ, বৃদ্ধি হবে না। দেহ ধ্বংস হয়ে যাবে। একটি কোষ যখন বিভাজিত হয় তখন কোষের ৩০০ কোটি নিউক্লিওটাইডের DNA হেলিক্সের যথাযথ প্রতিলিপি বা জেরক্স কপি তৈরী হতে হবে, যেটির জন্য এক অভাবনীয় প্রাযুক্তিক কৌশলের প্রয়ােজন।


 প্রতিমুহূর্তেই লক্ষ লক্ষ কোষ বিভাজিত হচ্ছে, অস্বাভাবিক দ্রুততায় তৈরী হচ্ছে। জেনেটিক তথ্যভান্ডারের প্রতিটি বিন্যাসের নিখুঁত জেরক্স কপি প্রত্যেক কোষে। কত দ্রুততায়? মানব দেহে ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত প্রতি মিনিটে ১০ কোটি কোষ তৈরী হতে থাকে, অবিরাম, ক্রমাগত। এতএব প্রতি মিনিটে দেহে ডি. এন.-এর ১০ কোটি জেরক্স প্রতিলিপি তৈরী হয়। এই দ্রুততা বিশ্বের কোন কোম্পানীর জেরক্স মেশিনে কখনাে অনুকরণযােগ্য নয়।


 সেই সাথে আমরা যেন মনে রাখি যে প্রতি কোষের জেনেটিক কোডে থাকে ১২ সেট। এনসাইক্লোপিডিয়া বা বিশ্বকোষ অর্থাৎ প্রতিটি ৫০০ পৃষ্ঠার ৩৮৪টি খন্ডের সমান তথ্য। এইরকম ১০ কোটি তথ্য ভান্ডার প্রতি মিনিটে তৈরী – মানবীয় প্রযুক্তিবিদ্যায় অকল্পনীয়, অভাবনীয় । অথচ আপনা থেকে, কোন বুদ্ধিমত্তার হস্তক্ষেপ ছাড়াই এই মার্ভেলাস টেকনােলজি তৈরী হয়ে গেছে এমন বিশ্বাস বহু গোঁড়া বিবর্তনবাদীর।।


বিজ্ঞানী জগদীশ চন্দ্র বসু- প্রতিষ্ঠিত বসু বিজ্ঞান মন্দিরের অধিকর্তা জৈবরসায়নবিদ  বিজ্ঞানী বীরেন্দ্র বিজয় বিশ্বাস ঃ 

“কতটুকু জানতে পেরেছি আমরা? এই দেহটা সম্বন্ধেই কি বেশী জানতে পেরেছি? ... ভাবুন তাে, সামান্য একটা সেল থেকে কীকরে আপনার আমার এই এত বড়াে দেহটা তৈরী হল হাত পা চোখ কান নাক হৃৎপিন্ড ফুসফুস সব অঙ্গপ্রত্যঙ্গ হল। চুল নখ দাঁত ইত্যাদি হল। কীকরে হল? কোষ তাে সেই একটাই। তার মধ্যে ডি.এন.এ আছে, ডি.এন.এ র মধ্যে আমাদের যাবতীয় হেরেডিটারি মেটেরিয়াল আছে –আছে সমস্ত ইনফরমেশন। ...কিন্তু কী করে এত সব হচ্ছে? ডি.এন.-এর মেসেজটা কী করে সেলের মধ্যে কাজ করছে, এখনও আমরা জানি না। কী করে আর.এন.এ তৈরী হচ্ছে, প্রােটিন তৈরী হচ্ছে কোষ বিভাজন হচ্ছে, একটা কোষ সংখ্যায় বাড়তে বাড়তে কোটি কোটি কোষ হচ্ছে – এখনও আমরা জানতে পারিনি।



Subscribe For Latest Information






Comments

This Blog is protected by DMCA.com

Subscribe

Enter your email address:

Delivered by FeedBurner

Popular Posts

Email Subscription

Enter your email address:

Delivered by FeedBurner

EMAIL SUBSCRIPTION