Follow

সি-ভ্যালু প্যারাডক্স ,বিবর্তনের প্রমাণহীন ,মিয়োসিস নামক জটিল কোষ বিভাজনে তৈরি হয় জনন কোষ এর জটিলতা || Page-85

  সি-ভ্যালু প্যারাডক্স


বিবর্তনের  প্রমাণহীন ,মিয়োসিস নামক জটিল কোষ বিভাজনে তৈরি হয় জনন কোষ এর জটিলতা



মিয়ােসিস নামক জটিল কোষ বিভাজনে তৈরী হয় জননকোষ, যেখানে ক্রোমােজোম থাকে অর্ধেক একে বলা হয় হ্যাপ্লয়েড কোষ। প্রতি হ্যাপ্লয়েড কোষে কত কিলাে বেসপেয়ার বা কত পিকোগ্রাম জিনােম বা ডি-এন-এ কনটেন্ট রয়েছে, সেই পরিমাপকে বলা হয় ক্রোমােজোম মূল্য। 


যদিও প্রােক্যারিওটিক (তথাকথিত সরল) কোষ থেকে ইউক্যারিওটিক কোষের হ্যাপলয়েড কোষে ডি.এন.-এর বিস্তৃতি, জটিলতা আবার অপেক্ষাকৃত অনেক বেশি। বিবর্তনের সংগে এই ঘটনা সম্পূর্ণ সামঞ্জস্যশূন্য। বিবর্তনবাদী জীববিজ্ঞানীরা এইভাবে শুরুতেই ধাঁধায় পড়েছেন। এইটির আজও সমাধান হয়নি; একে বলা হয় সি-ভ্যালু।



কিন্তু অন্যান্য রিজ্ঞানীরা তাহলে স্বীকার করছেন না কেন? করছেন। যারা গভীরভাবে ভাবছেন কিংবা গবেষণা করছেন, অকপটে স্বীকার করছেন বাস্তবতা। সাউথ ক্যারােলিনা ইউনিভার্সিটির মেডিক্যাল ফ্যাক্টল্টি-র একজন গবেষক, জৈব রসায়নবিদ ডঃ ক্রিস্টিয়ান সােয়েব একজন বিবর্তনবাদী বিজ্ঞানী। 


ইনি আণবিক স্তরে বিবর্তনের প্রমাণ সংগ্রহের জন্য বহু বছর ধরে গবেষণা করছেন। বিশেষতঃ তিনি ইনসুলিন ও রিল্যাক্সিন-টাইপ প্রােটিন নিয়ে গবেষণা করেছেন ও অনুন্নত ও উন্নত জীবসমূহের মধ্যে বিবর্তনগত সম্পর্ক প্রদর্শনের চেষ্টা করে আসছেন। কিন্তু তিনি স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছেন যে আণবিক জীবেও রয়েছে সীমাহীন জটিলতা ও উন্নততম প্রযুক্তি বিবর্তনের কোনই প্রমাণ নেই। একটি সায়েন্টিফিক জার্নালে বিজ্ঞানী সােয়েব লিখেছেনঃ । 


"Molecular evolution is about to be accepted as a method superior to palaeontology for the discovery of evolutionary relationships. As a molecular evolutionist I should be elated. Instead, it seems disconcerting that many exceptions exist to the orderly progression of species' as determined by molecular homologies, so many in fact that I think the exception, the quirks, may carry the more important message.”


 অর্থাৎ “বিবর্তনগত সম্বন্ধ আবিষ্কারের ক্ষেত্রে আণবিক বিবর্তনকে উন্নততর জীবাশ্মবিদ্যা বলে স্বীকার করে নেওয়া হয়। একজন আণবিক বিবর্তনবাদী হিসাবে আমার গর্বিত হওয়া উচিত। পরিবর্তে, আণবিক সদৃশতা অনুসারে নির্ধারিত শ্রেণীতে প্রজাতি সমূহের শৃঙ্খলাপূর্ণভাবে উন্নততর হয়ে ওঠার ক্ষেত্রে বহু ব্যতিক্রম রয়েছে। বস্তুতপক্ষে সেগুলাে এতই বেশি যে আমি মনে করি ঐ ব্যতিক্রমগুলি ঐ অজানা বিষয়গুলি গুরুত্বপূর্ণ কোনাে বার্তা বহন করছে।”

. "

স্বনামখ্যাত বায়ােকেমিস্ট মাইকেল ডেনটনঃ "Each class at molecular level is unique, isolated and unlinked mediates. Thus, molecules, like fossils, have failed to prove the elusive intermediates so long sought by evolutionary biology...... At a molecular level, no organism is "ancestral” or “Primitive" or "advanced” compared with its relatives .... There is little doubt that if this molecular evidence had been available a century ago, .... the idea of organic evolution might never have been accented” 


অর্থাৎ “আণবিক স্তরে প্রতিটি শ্রেণীর জীব অনন্য, বিচ্ছিন্ন, এবং অন্যান্য অন্তর্বর্তী প্রজাতির সংগে সম্বন্ধ বিহীন, অসংযুক্ত। এইভাবে অণুজীবসমূহ, জীবাশ্মদের মতােই সেইসব অন্তর্বর্তী যােগসূত্রদের খোঁজ চলেছে। আণবিক স্তরে কোন জীবই আদিম’, ‘পূর্বপুরুষমূলক’ বা “উন্নত” নয়—তাদের স্বগােত্রীয় জীবদের মধ্যে ....। এতে প্রায় কোনাে সন্দেহই নেই যে, যদি এই অণুজীবতত্ত্বগত প্রমাণ এক শতাব্দী আগে সুপ্রাপ্য হত ....তাহলে জৈব বিবর্তন বাদের এই ধারনা কখনই গৃহীত হতাে না।”


Subscribe For Latest Information






Comments

This Blog is protected by DMCA.com

Subscribe

Enter your email address:

Delivered by FeedBurner

Popular Posts

Email Subscription

Enter your email address:

Delivered by FeedBurner

EMAIL SUBSCRIPTION