Adsterra 7

 

Follow

মন্ত্র মেডিটেশান সবচেয়ে ফলপ্রসূ (PAGE-280)

  মন্ত্র-মেডিটেশান সবচেয়ে ফলপ্রসূ 

(PAGE-280)

মন্ত্র মেডিটেশান  সবচেয়ে ফলপ্রসূ


মন্ত্র-মেডিটেশান, বা মন্ত্র ধ্যান এ-পর্যন্ত আবিষ্কৃত ধ্যান-প্রক্রিয়ার মধ্যে সবচেয়ে গভীরতম ও কার্যকর কেননা এই অপ্রাকৃত শব্দতরঙ্গ আসছে চিন্ময়, শাশ্বত জগতের স্তর থেকে; এবং এটি বিশেষভাবে এই যুগের মানুষদের জন্য স্বয়ং ভগবান-প্রদত্ত ধ্যান-পন্থা। এ-যুগের পরিবেশ ঋষি পত্রাঞ্জলি প্রণীত অষ্টাঙ্গযােগ বা ধ্যান পন্থার জন্য অনুকূল নয়। মানুষ শহরবাসী, বনবাসীনয়। এই যুগের স্বল্পায়ু, বস্তু-উপদ্রুত বিশ্ববাসীর জন্য শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর উপমাহীন উপহার ও মহামন্ত্র উচ্চারণ, ধ্যান। মহামন্ত্র জপের কিছু অব্যর্থ উপকারিতা ঃ 


 ১. মনের গভীর স্নিগ্ধতা, স্ট্রেস মুক্তি (Relaxation), পূর্ণ মানসিক প্রশান্তি লাভ।। 

২.শারীরিক সুস্থতাঃ মানসিক চাপ-মুক্তির ফলে শরীরের নানা-রােগবিকারও প্রশমিত হয়ে শারীরিক সুস্থতা লাভ। 

৩. পরিপূর্ণ আত্মিক প্রসন্নতা লাভ।। 

৪. চারিত্রিক শুদ্ধতা লাভঃ বিশ্বের লক্ষ লক্ষ মানুষ মাংসাহার, নেশা,জুয়া ও অবৈধ যৌনতার রূপ বিকৃতি থেকে মুক্ত হয়ে সুস্থ সুন্দর হয়ে উঠছেন মহামন্ত্র কীর্তন করে। 

৫. আত্মজ্ঞান বা আত্মােপলব্ধি লাভ ঃ ধ্বংসশীল জড়শরীরে কেন্দ্রিত চেতনা থেকে বিমুক্ত হয়ে অবগত হওয়া যায় নিজের প্রকৃত স্বরূপ।

 ৬. ব্যক্তিত্বের পূর্ণ বিকাশ ও প্রত্যেকেই অনুভব করে নিজের অপূর্ণতা (Imperfections)। ‘সেল ডেভেলপমেন্ট বা আত্মবিকাশের জন্য কত ইনস্টিটিউশান, সংস্থা রয়েছে, রয়েছে শিক্ষাব্যবস্থা। কিন্তু কিছুতেই আসে না পূর্ণ আত্মিক বিকাশ। শিক্ষিত মানুষই দুর্নীতি করছে, অপসংস্কৃতি আমদানি করছে, কলহ-বিবাদ করছে, মিডিয়াতে কদর্য ছবি লেখা ছাপছে , যুদ্ধাস্ত্র তৈরী করছে। ডেল কার্নেগী ব্যক্তিত্ব বিকাশ নিয়ে অনেক বই লিখেছেন, কিন্তু মানসিক চাপ সহ্য করতে না পেরে নিজেই দোতলা বাড়ী থেকে লাফিয়ে আত্মহত্যা করেন। 


জড় প্রয়াস কেবল হতাশা নিয়ে আসে। মহামন্ত্র জপের প্রভাবে স্বভাব ও চেতনার সকল বিকৃতি ও অপূর্ণতা দূর হয়, অচিরেই লাভ হয় সুস্থ, সুন্দর সগুণাবলীভূষিত সুন্দর ব্যক্তিত্ব। অন্তরের সুপ্ত, সূক্ষ্ম সুন্দর ভাবগুলি প্রকাশিত ও অনুভূত হতে শুরু করে। কোন কৃত্রিম উপায়ে এটি সম্ভব নয়। 


৭. জড় কলুষ থেকে মুক্তি :: মানসিক চাপের উৎস চেতনায় রজ-তমাে-আদি জড়গুণের প্রভাব – যা স্বভাবকে নিয়ন্ত্রণ করে। প্রকৃতির ত্রিগুণের প্রভাব হতে চেতনা যখন মুক্ত হয়, তখন পূর্ণ প্রসন্নতা লাভ করা যায় (ব্রহ্মভূত প্রসন্নাত্মা, ভ.গী, ১৮/৫৪)। 


৮. অমরত্ব লাভ, ভগবদ্ধামেশাশ্বত জীবন প্রাপ্তি।

 জরা-ব্যাধি-মৃত্যুর ভয়ংকর দুর্দশা হতে মুক্তির উপায় খুঁজছেন বিজ্ঞানীরা, যদিও কেউই সফল হননি। ভগবৎ-প্রেম সুপ্ত থাকায় চেতনায় সাম্রাজ্য বিস্তার করে কাম-ক্রোধ-লােভ-মােহমদ-মাৎসর্য-বিষয়াসক্তি। এদের তাড়নায় অর্থহীন প্রয়াসে ক্রমাগত ছুটতে হয় মানুষকে এবং জড়শরীরে জরা-ব্যাধি-মৃত্যুর মতাে ভয়ংকর কষ্ট ভােগ করতে বাধ্য হতে হয়।


 মহামন্ত্রের প্রভাবে চেতনা জড়-আবিলতা হতে, জড়বিষয়াসক্তি হতে বিমুক্ত হয়, বন্ধ হয় লক্ষ লক্ষ বার জড় শরীর উৎপন্ন হওয়ার জড়ীয় জীবনচক্র, পুনর্জন্মচক্র। জাতি, ধর্ম, যােগ্যতা-অযােগ্যতা নির্বিশেষে যেকোন মানুষ মহামন্ত্রের প্রভাবে কৃষ্ণচেতনা লাভ করে ভগবদ্ধামে ফিরে গিয়ে জরা ব্যাধিহীন শাশ্বত স্বরূপ লাভ করতে পারে —আত্মা শাশ্বতই। 



 ৯. পাপ-প্রতিক্রিয়া ও কর্মবন্ধন হতে মুক্তিঃ

 পাপ ও কর্মফলের বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে বিভিন্ন শরীরে ফলভােগ করতে বাধ্য হতে হয়। অপ্রাকৃত শব্দতরঙ্গ শ্রবণ, উচ্চারণের ফলে সুপ্ত ভগবদ্ভক্তি বিকশিত হয়, ধ্বংস হয় সমস্ত পাপ, সকাম কর্মের ফল। এর ফলে জড় জগৎরূপ কারাগারে কারাবাসের মেয়াদ সমাপ্ত হয়।


 ১০. ভগবৎ-প্রেম লাভ ঃ মহামন্ত্র স্বয়ং ভগবানের অভিন্ন শব্দবিগ্রহ ; সেজন্য এই চিন্ময় শব্দতরঙ্গ দ্রুত ভগবদ-উপলব্ধি প্রদান করে এবং অন্তরের সুপ্ত ভগবদ্ভক্তি, ভগবৎ-প্রেম পুনর্জাগরিত করে।। 


১১ চিন্ময় উপলব্ধি লাভ ঃ ভগবদ্ধামের দিব্যচিন্ময় রূপ-গুণ-বিলাস-বৈভব ও অপ্রাকৃত ভগবদ্ধামের চিন্ময় রূপ-বৈচিত্র্যের দিব্য অনুভব-উপলব্ধি লাভ হয়।


 ১২. চিন্ময় সুখ আস্বাদন ঃ প্রতিটি জীব, প্রত্যেক মানুষ আনন্দের সন্ধান করছে। আনন্দ অনভবের নানা স্তর রয়েছে। মহামন্ত্র-মেডিটেশনের ফলে সর্বোচ্চ আনন্দ—প্রেমময় ভগবৎসেবাজনিত চিন্ময় সুখানুভব বা দিব্য আনন্দ লাভ করা যায়। এমনকি আনন্দমগ্নতায় নৃত্যের প্রবণতা রুদ্ধ করা অসম্ভব হয়ে পড়ে। মানুষ এর প্রভাবে সমস্ত জড় বিষয়ের প্রতি নিরাসক্ত, বিতৃষ্ণ হয়ে পড়ে। জড় প্রয়াসে এইরকম শুদ্ধ নির্মল আনন্দানুভব লাভ অসম্ভব। চিন্ময় আনন্দামৃতরসাস্বাদ মহামন্ত্রের অপ্রাকৃত শব্দতরঙ্গই অপ্রাকৃত আনন্দের আস্বাদ দান করতে পারে। জড় ইন্দ্রিয়ের মাধ্যমে এটি লাভ করা সম্ভব নয়, বরং তা নানা বিকার-স্বার্থ-দ্বেষ ইত্যাদিতে অন্তরকে বিষাক্ত করে তােলে। অবশ্য এই মহামন্ত্র ধ্যানের পন্থা প্রথমে উন্নত ভগবদ্ভক্তদের নিকট থেকে শিখে নিতে হয়:সেই সাথে অসদাচারী, পেশাদার ও অভক্তদের কাছ থেকে এই মহামন্ত্র জপ-কীর্তন শ্রবণ করা সম্পূর্ণ বর্জন করা উচিত।

Subscribe For Latest Information






Comments

This Blog is protected by DMCA.com

Subscribe

Enter your email address:

Delivered by FeedBurner

adstera-6

         

Email Subscription

Enter your email address:

Delivered by FeedBurner

EMAIL SUBSCRIPTION